লজ্জাবতির পরিচিতি ও ভেষজ গুণাবলি:

লজ্জাবতির  ভেষজ গুণাবলিতে পরিপূর্ন ঔষধী উদ্ভিদ। এটি  গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ। এর শাখার নীচের দিকে বাঁকা কাঁটা থাকে। এর পাতা যৌগিক পক্ষল, স্পর্শ করলেই বিপরীত দিকের পাতাটি নেমে এসে জুড়ে যায়। ফুল বেগুনী-লাল বর্ণ। বারো মাসেই ফুল ও ফল হয়। তবে জুলাই থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে ফুল ও ফল বেশী হয়।

প্রচলিত নামঃ লজ্জাবতি, লাজন্তি

ইউনানী নামঃ লাজওয়ান্তী

আয়ুর্বেদিক নামঃ লজ্জাবতী, ছূইমূই

ইংরেজি নামঃ Humble Plant, Sensitive Plant

বৈজ্ঞানিক নামঃ Mimosa pudica Linn.

পরিবারঃ Mimosaceae

প্রাপ্তিস্থানঃ

বাংলাদেশের সর্বত্র বন্য অবস্থায় জন্মে থাকে।

রোপনের সময় ও পদ্ধতিঃ অগ্রাহায়ণ-মাঘ মাসে বীজ হতে এর বংশ বিস্তার হয়। অঙ্গজজননের মাধ্যমেও এর বংশ বিস্তার সম্ভব। ইহা ছায়াতেও জন্মে।

রাসায়নিক উপাদানঃ পাতায় অ্যালকালয়েড ও এড্রিনালিন এর মত একটি উপাদান এবং মূলে ট্যানিন বিদ্যমান।

ব্যবহার্য অংশঃ সমগ্র উদ্ভিদ।

গুনাগুনঃ

রক্ত পরিষ্কারক, লাবণ্যতা আনয়নকারক ও ঋতুস্রাবকারক। প্রদর, অর্শ, আমাশয়, নালী ঘা ও পুরনো ক্ষত নিরসনে উপকারী।

বিশেষ কার্যকারিতাঃ রক্ত পরিষ্কারক।

রোগ অনুযায়ী ব্যবহার পদ্ধতিঃ

রোগেরনামঃ বিভিন্ন চর্মরোগ ও দেহের লাবণ্যতায়
ব্যবহার্য অংশঃ সমগ্র গাছ (আধাচূর্ণ)
মাত্রাঃ ১০ গ্রাম
ব্যবহার পদ্ধতিঃ ২ কাপ পানিতে মিশিয়ে জ্বাল করে ১ কাপ থাকতে নামিয়ে ছেঁকে নির্যাসটুকু প্রত্যহ ২-৩ বার সেব্য।

রোগেরনামঃ পুরাতন আমাশয়ে
ব্যবহার্য অংশঃ সমগ্র গাছ (আধাচূর্ণ)
মাত্রাঃ ১০ গ্রাম
ব্যবহার পদ্ধতিঃ ২ কাপ পানিতে মিশিয়ে জ্বাল করে ১ কাপ থাকতে নামিয়ে ছেঁকে নির্যাসটুকু প্রত্যহ ২-৩ বার সেব্য।

রোগেরনামঃ দেহের ক্ষতে
ব্যবহার্য অংশঃ সমগ্র গাছ (কাঁচা)
মাত্রাঃ প্রয়োজনমত
ব্যবহার পদ্ধতিঃ ভাল্ভাবে পিষে নিয়ে আক্রান্ত স্থানে দৈনিক ২-৩ বার লাগাতে হবে।

সতর্কতাঃ

মাত্রাধিক ব্যবহার অনুচিত।