মুরগীর মাংস

মুরগী মাংস আমাদের পছন্দের খাবারের একটি নাম। ছোট থেকে বড়  সবার প্রিয় মুরগীর মাংসের যে কোন পদ। ফ্রাইড চিকেন থেকে শুরু করে চিকেন কারি সব খাবারই  খুবই জনপ্রিয়। প্রতিদিন সারা বিশ্বে ৫৫ মিলিয়ন মুরগির মাংস খাওয়া হয়ে থাকে।

আমেরিকা একটি গবেষণা উঠে এসেছে প্রতি বছর ৯ বিলিয়ন  ব্রয়লার মুরগী খাওয়া হয়ে থাকে দেশটিতে এবং বিশ্বব্যাপী ৫০ বিলিয়ন ব্রয়লার মুরগী জবাই করা হয় খাবারের উদ্দ্যেশে। আর দেশী মুরগির ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাপী ৭ বিলিয়ন পরিমান মাংস খাওয়া হয়।

সুতরাং বলা যায়,  মুরগী মাংস কতটা জনপ্রিয়। শুধুমাত্র জনপ্রিয় নয় পুষ্টিগুনের দিক থেকেও মুরগী মাংস এগিয়ে।  

প্রতি ১০০ গ্রাম ব্রয়লার মুরগীতে . ক্যালরি  রয়েছে ১০২ গ্রাম, ফ্যাট ২.২ গ্রাম,কোলেস্টেরল ৬২ গ্রাম, সোডিয়াম ৩৮ গ্রাম,  পটাশিয়াম ২৮৪ গ্রাম, প্রোটিন ৬২ গ্রাম, ভিটামিন-এ ১ গ্রাম, আয়রণ ১.৮ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ১১ মি.গ্রা, ফসফরাস ১৪৭ মি.গ্রা, জিংক ১.৩ মি.গ্রা ইত্যাদি।  

প্রতি ১০০ গ্রাম দেশী মুরগীতে রয়েছে   ক্যালরি ১৮৫ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেট ০.৪ গ্রাম, ফ্যাট ৩২.২ গ্রাম, প্রোটিন ৩১ গ্রাম,ভিটামিন-এ ২১ মি.গ্রা, ভিটামিন – কে, ই ০.৩ মি.গ্রা, কোলিন ৮৫.৩ গ্রা. নায়াসিন-১৩.৭ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ১৫ গ্রাম, সিলিনিয়াম -২৭.৬ মাইএোগ্রাম,কোলেস্টেরল-৮৫ গ্রাম।

মুরগীর মাংসের উপকারিতাও কম নয়। প্রোটিনের খুবই ভাল উৎস। এতে থাকা উচ্চ মানের প্রোটিন ওজন কমাতে সাহায্য করে। কারণ মুরগী মাংসে সামান্য পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট পাওয়া যায় যা ওজন বাড়াতে দেয় না।এতে আরো রয়েছে ভিটামিব বি যা চোখের ছানি পড়তে বাধা দেয়। মুরগীর মাংস রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। ক্যান্সার ও কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে এই মাংস। তবে অবশ্যই পরিমিত পরিমানে গ্রহন করতে হয়।

তবে কিছু অসাধ্যু চক্রের জন্য মুরগীর মাংস ক্ষতিকর হয়ে পড়ছে মানবদেহর জন্য। জন সচেতনতায় পারে মুরগীর মাংসকে আমাদের জন্য নিরাপদ করতে।

হাসের মাংস    

হাসের মাংস মুরগির মাংসের মতো জনপ্রিয়। তবে শীতের সময় বেশি খাওয়া হয় হাসের মাংস।অন্যান্য সময় কিছুটা কম।হাসের মাংস রেড মিট বলা হয় না তবে চামড়া সহ মাংস রান্না করা হয় বলে হাসের মাংসে ফ্যাটের পরিমান বেশি।

তবে পুষ্টিগুণ ও কম কিছু নয় হাসের মাংসে। প্রতি ১০০ গ্রাম হাসের মাংসে ক্যালরি ৩৩৭ গ্রাম, ফ্যাট ২৮ গ্রাম, কোলেস্টেরল ৮৪ গ্রাম, সোডিয়াম ৫৯ মি.গ্রা., পটাশিয়াম ২০৪ মি.গ্রা. প্রোটিন ১৯ গ্রাম।

বাড়ন্ত বাচ্চাদের জন্য বেশ প্রযোজ্য এই মাংস। তবে উচ্চ রক্ত চাপ, বাত রোগী-সহ ডায়াবেটিকদের জন্য ভাল নয়।স্বাদের তৃপ্তি গ্রহনের জন্য অল্প পরিমান শ্রেয়।

কবুতরের মাংস

কবুতরের মাংস চর্বি ছাড়া উচ্চমানের প্রোটিন সমৃদ্ধ একটি মাংস। স্বাদে ও পুষ্টিগুনে ভরপুর একটি পদ। রোগীর ক্ষেএে ডাক্তাররা বিশেষভাবে বলে থাকেন কবুতরের মাংস খাওয়ার জন্য।বাচ্চা সহ বৃদ্ধের জন্য বেশ উপযোগী এই মাংস।

প্রতি ১০০ গ্রাম মাংস রয়েছে ক্যালরি ২১৩ গ্রাম, সম্পূর্ণ ফ্যাট ১৩ গ্রাম, কোলেস্টেরল ১১৬ মি.গ্রা, সোডিয়াম ৫৭ মি.গ্রা, পটাশিয়াম ২৫৬ মি.গ্রা, সম্পূর্ণ প্রোটিন ২৪ গ্রাম।

কবুতরের মাংস বেশ উপকারী যাদের ব্যাকপেন রয়েছে, ট্রমা, গাটের ব্যাথা, ইউরিন ইনফেকশন  এসকল রোগীদের জন্য। শর্করার পরিমান স্বল্প পরিমানে রয়েছে বলে ডায়েট এর তালিকা যুক্ত করতে পারেন। তাছাড়া চর্বি ছাড়া মাংস সবার জন্য উপযোগ।