অর্গানিক পণ্য নিয়ে ই-বুক প্রকাশ করল মাই অর্গানিক বিডি:

অর্গানিক খাবার, বাংলাদেশে অর্গানিক খাবারের বাজার,
অর্গানিক খাবার গ্রহণের সুবিধা সমূহ ইত্যাদি বিষয় নিয়ে
“অর্গানিক ফুড অ্যান্ড স্টাফ:ইন পার্সপেক্টিভ অব বাংলাদেশ”
শিরোনামের একটি ই-বুক প্রকাশ করেছে অনলাইন অর্গানিক খাবার বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান মাই অর্গানিক বিডি ডট কম। আজ সন্ধ্যায় (শুক্রবার) মিরপুরের তাজ বেঙ্গলরেস্টুরেন্টে ই–কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই–ক্যাব) এর স্ট্যার্ট আপ এ্যান্ড ফান্ডিং কমটি কর্তৃক আয়োজিত ই–ক্যাব মিরপুর আড্ডাতে এই ই–বুকটি উন্মোচন করা হয়।

মাই অর্গানিক বিডি এর তত্ত্বাবধানে মার্কেটিং প্রতিষ্ঠান
শেপ কমিউনিকেশন্স বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ ইংরেজি ভাষা চর্চারসর্ববৃহৎ
অনলাইন প্ল্যাটফর্ম,সার্চ ইংলিশ, এই ই–বুকের যাবতীয় কাজ করে।

ইক্যাবের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট এবং সার্চ ইংলিশ এর প্রতিষ্ঠাতারাজিব আহমেদ বইটি উন্মোচন করেন। বইটি উন্মোচন উপলক্ষে রাজিব আহমেদ বলেন,“আমাদের দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে এমন একটি বইয়ের খুবই প্রয়োজন ছিল আমাদের দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে অর্গানিক ফসল ও  সবজি

খুবই দরকারি একটি ব্যাপার। প্রায়শই এখন পত্র–পত্রিকায়আমরা খবর দেখতে পাই যে আমাদের দৈনন্দিন
খাদ্যে ভেজাল,ফলমূল এবং শাকসব্জিতে উচ্চমাত্রা রাসায়নিক সার
সহ নানা ধরণের রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করা হচ্ছে যা মানবদেহের জন্যে
খুবই ক্ষতিকারক। এ সমস্যা থেকে বের হতে হলেআমাদের অর্গানিক
উপায় উৎপাদিত ফসল, শাক–সব্জি খাবার উপরে জোর দিতে হবে। তাই আমি মাই অর্গানিক বিডি এরএই পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানাই।

আমি আরো আনন্দিত যে এই ই–বুকটি রচনা করার ব্যাপারে সার্চ ইংলিশের সদস্যরা নিরলসভাবে কাজ
করে গিয়েছে।এমন একটি প্রচেষ্টার সাথে যুক্ত হতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত।”

ই–বুকটি প্রকাশনা উপলক্ষে মাই অর্গানিক বিডি এর প্রতিষ্ঠাতা
সিইও শরীফুল আলম পাভেল বলেন, “সুপ্রাচীন কাল থেকেআমাদের দেশের অর্থনীতির একটি  গুরুত্বপূর্ণ
অংশ হচ্ছে কৃষি। এখনো এটি আমাদের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ
অবদানরেখে চলছে। বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে আমাদের দেশীয় কৃষিখাতে অনেক
অগ্রগতি সাধিত হয়েছে।

আট বছরের ব্যবধানে খাদ্যশস্য উৎপাদন বেড়েছে প্রায় ৬০
লাখ মেট্রিক টন। সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে মৎস্যও প্রাণিসম্পদ
খাতেও আমরা অনেক সাফল্য লাভ করতে পেরেছি। কিন্তু দূর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে আমাদের কৃষিখাতবর্তমানে
রাসায়নিক পণ্যের উপরে খুবই নির্ভরশীল। আমাদের দেশের চাষিরা ফসল উৎপাদনের জন্যে জমিতে
রাসায়নিকসার ব্যবহার করছে, একই সাথে উৎপাদিত শাকসবজি,
ফলমূল রক্ষণাবেক্ষণ ও প্রক্রিয়াকরণের বিভিন্ন পর্যায়ে ব্যাপক হারেরাসায়নিক
পদার্থ ব্যবহৃত হচ্ছে যা শুধু মানবদেহের জন্যেই ক্ষতিকর নয় বরং
পরিবেশের জন্যেও ক্ষতিকর। আর এজন্যেই আমরা অর্গানিক পণ্য
নিয়ে কাজ শুরু করেছি।

অর্গানিক পণ্য উৎপাদনের ক্ষেত্রে রাসায়নিক সার বা কোন
রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করা হয় না। তাই অর্গানিক খাবারমানবদেহ এবং পরিবেশের জন্যেও উপকারি। কিন্তু আমাদের দেশে অর্গানিক পণ্য নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে
সচেতনতাকম এবং অর্গানিক পণ্য সম্পর্কে তথ্যের অনেক অভাব রয়েছে। এই অভাব লক্ষ্য করেই আমরা এই ই–বুকটি প্রকাশকরেছি। আমরা আশা করছি যে, পাঠকরা এই বইটি পড়ে অর্গানিক পণ্য
সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং অর্গানিক খাবার ওঅর্গানিক
লাইফস্টাইল পণ্য কিনতে উৎসাহিত হবেন।”

তিনি আরো বলেন যে ই–বুকটি সকলের জন্যে উন্মুক্ত। যে কেউ চাইলে বইটি ডাউনলোড করে পড়তে পারবে।

“অর্গানিক ফুড অ্যান্ড স্টাফ:ইন দ্যা পার্সপেক্টিভ অব বাংলাদেশ” ই–বুকটি সম্পর্কে জানতে এবং ডাউনলোড করতে এইলিঙ্কে ভিজিট করুন:

মাই অর্গানিক বিডি ওয়েবসাইট লিঙ্ক: http://13.233.150.213/

ই-বুকটি ডাউনলোড করতে ভিজিট করুনঃ http://13.233.150.213/ebook/